গাছের মাধ্যমে কিভাবে বিদ্যুৎ উৎপন্ন করা যায়?

গাছের মাধ্যমে কিভাবে বিদ্যুৎ উৎপন্ন করা যায়?

প্রশ্নটা যেভাবে করা হয়েছে সেভাবে উত্তর দিতে আমি অপারগ। কেননা, 'কিভাবে' উৎপন্ন করা যায়, তা নিয়ে বিজ্ঞান মহলে বিস্তর গবেষণা চলছে, আর এখনো এটা সফলতার মুখ দেখেনি, তবে অদূর ভবিষ্যতে নিশ্চয়ই গাছের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাবে। এখানে সামান্য বর্ণনা দেবার চেষ্টা করছি,বর্তমান পৃথিবীর মূল শক্তির উৎস জীবাশ্ম জ্বালানী, যা কোটি কোটি বছর আগে গাছপালা ছিল, রূপান্তরিত হয়ে খনিজ তেল, গ্যাস ইত্যাদিতে পরিণত হয়েছে, সেগুলোর উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে আজকের এই মানবসভ্যতা। যেহেতু সমস্ত পৃথিবীর জীবাশ্ম জ্বালানী অফুরন্ত নয়, অচিরেই ফুরিয়ে যাবে, এজন্য মানুষদের ভাবতে হচ্ছে বিকল্প উপায়ে শক্তি উৎপাদনের উপায়। এজন্য বিস্তর গবেষণা হচ্ছে, অনেক উপায়ও বের হয়েছে, যেমন, সৌর-বিদ্যুৎ(Solar Energy), ভূগর্ভস্থ তাপীয় শক্তি (Geothermal Energy), সমুদ্রের তাপ শক্তির রূপান্তর (Ocean Thermal Energy Conversion), বায়োগ্যাস (BioGas Plant), উদ্ভিদ থেকে প্রাপ্ত জ্বালানী তেল (Green Fuel) ইত্যাদি। প্রশ্নটা যেহেতু গাছ সম্বন্ধে তাই আলোচনা অন্যদিকে নিচ্ছি না । বর্তমান সময় (২০১৯) পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা সর্বোচ্চ ৪৭.১% সৌরশক্তিকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তর করার সৌরকোষ বানাতে পেরেছে, তবে এখনো এটা পরীক্ষাগারে সীমাবদ্ধ, এবং বাজারে যে সকল সোলার প্যানেল পাওয়া যায়, সেটি সর্বোচ্চ ২২.৮% সূর্যের আলোকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তর করতে পারে। কিন্তু মজার বিষয় হল আমাদের আশেপাশের গাছপালাগুলো যে প্রক্রিয়ায় তাদের খাদ্য উৎপাদন করে, সালোকসংশ্লেষণ প্রক্রিয়া, এই প্রক্রিয়ার প্রথম অংশে গাছ ঠিক ফটোভোল্টিক সেলের কাজটি করে প্রায় ৯০% ইফিসিয়েন্ট ভাবে (৫)। এই প্রক্রিয়াকে ব্যবহার করে যদি বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়, তাহলে ভবিষ্যতে শক্তির জন্য আর ভাবতে হবেনা। আর এটা যে সম্ভব তা বিজ্ঞানীরা এরই মধ্যে পরীক্ষাগারে প্রমাণ করেছেন। আরো গবেষণা হচ্ছে। ভবিষ্যতে হয়তো গাছই আমাদের শক্তির যোগান দেবে, কিন্তু যে হারে উন্নত বিশ্ব বন ধ্বংসের অভিযানে নেমেছে তা বেশ ভীতিকর।

Post a Comment

0 Comments